ঢাকাশনিবার , ১০ এপ্রিল ২০২১
  1. অর্থনীতি
  2. আইন আদালত
  3. আরো
  4. কৃষি সংবাদ
  5. জাতীয়
  6. নেত্রকোণা জেলার খবর
  7. প্রধান খবর
  8. প্রযুক্তি
  9. ফিচার
  10. বিদেশ খবর
  11. বিনোদন
  12. বিভাগীয় খবর
  13. রাজনীতি
  14. রাশিফল
  15. লাইফস্টাইল
আজকের সর্বশেষ সবখবর

এক্স-রে মেশিন থাকার পরও সেবা কার্যক্রম বন্ধ

জনপ্রিয় ডেস্ক
এপ্রিল ১০, ২০২১ ৮:৪২ অপরাহ্ণ
Link Copied!

‘মুজিব বর্ষে স্বাস্থ্য খাত, এগিয়ে যাবে অনেক ধাপ’ এর আলোকে এক্স-রে মেশিন নষ্ট থাকায় গেল বছর ২০২০ সালের ডিসেম্বরে নেত্রকোনার কলমাকান্দা সরকারি হাসপাতালে উন্নত মানের ৫০০ এমএ একটি এক্স-রে মেশিন সরকারিভাবে দেওয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে পরিপাটি নতুন এক্স-রে মেশিনের রুম তৈরি করা হয়েছে। তারপরও সেবা কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে।

শুধু একজন রেডিও গ্রাফার কর্মস্থলে না থাকার কারণে এক্স-রে মেশিনটি রোগীদের কোনো কাজে আসছে না। এর ফলে এক্স-রে সেবা কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। এক্স-রে মেশিনের রুমে ঝুলছে তালা। তবে রেডিও গ্রাফারের ডেপুটেশন বাতিলের জন্য ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ বরাবর একাধিকবার চিঠি প্রেরণ করেছেন দাবি হাসপাতালের কর্তৃপক্ষ।

জানা গেছে, উপজেলায় বেশির ভাগ রোগীই সড়ক দুর্ঘটনায় জখম হন। হাসপাতাল থেকে বাইরে রোগী নিয়ে গিয়ে এক্স-রে করানো খুবই জটিল কাজ। হাসপাতালে এক্স-রে করাতে ৬০ থেকে ৮০ টাকা লাগলেও বাধ্য হয়ে রোগীদের হাসপাতালের বাহিরে ডায়গনস্টিক সেন্টারে ২০০ থেকে ৩০০ টাকা টাকা দিয়ে এক্স-রে করতে হয়।

কোনো ক্ষেত্রে আরও বেশি টাকা লাগে। উপজেলার হাসপাতালে এক্স-রে সেবা নিতে আসা অনেকই বলেন, এক্স-রে না হওয়ায় বেশি টাকা দিয়ে বাইরে থেকে এক্স-রে করতে হয়।

উপজেলার হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, রেডিওগ্রাফার মো: আশ্রাফুজ্জামান কলমাকান্দা হাসপাতালে ৩১.১২.২০১৪ ইং যোগদান করেন। এক্স-রে মেশিন নষ্ট থাকায় ২০১৬ সালের ১০ আগস্ট থেকে রেডিওগ্রাফার মো. আশ্রাফুজ্জামান টাঙ্গাইল জেলা সদর হাসপাতালে ডেপুটেশনে রয়েছেন। এরপর থেকে পুরাতন মেশিনটিও নষ্ট হয়ে পড়ে আছে। এরপর থেকে ষ্টেশনে না এসেই অনলাইনে বেতনসহ সুযোগ-সুবিধা নিচ্ছেন তিনি।

মো: আশ্রাফুজ্জামানের ডেপুটেশন বাতিল চেয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ দুই দফা চিঠি প্রেরণ করেছেন। গেল বছরের ডিসেম্বর মাসে হাসপাতালে ৫০০ এমএ মানের একটি উন্নত ডিজিটাল এক্স-রে মেশিন সরকারিভাবে দেওয়া হয়েছে। আর রেডিওগ্রাফার ডেপুটেশনে থাকায় মেশিনটি এখনো পর্যন্ত ব্যবহার করা যাচ্ছেনা। হাসপাতালে ভর্তি হওয়া ও বাইরে থেকে এক্স-রে করতে আসা রোগী ও স্বজনদের বে-সরকারি প্রতিষ্ঠানের ওপর নির্ভর করতে হচ্ছে।

কলমাকান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আল মামুন এক্স-রে সেবা কার্যক্রম বন্ধ থাকার কথা স্বীকার করে বলেন, একাধিকবার চিঠি প্রেরণসহ পুনরায় গত ১৫ মার্চ রেডিওগ্রাফার মো. আশ্রাফুজ্জামানের ডেপুটেশন বাতিল চেয়ে ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ বরাবরে চিঠি প্রেরণ করা হয়েছে। আশা করছি দ্রæত সময়ের মধ্যে এক্স-রে সেবা কার্যক্রম চালু হবে।

আরো পড়ুনঃ নেত্রকোনায় দুঃস্থ পরিবারের মাঝে নগদ অর্থ বিতরণ

x