ঢাকাশুক্রবার , ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১
  1. অর্থনীতি
  2. আইন আদালত
  3. আরো
  4. কৃষি সংবাদ
  5. জাতীয়
  6. নেত্রকোণা জেলার খবর
  7. প্রধান খবর
  8. প্রযুক্তি
  9. ফিচার
  10. বিদেশ খবর
  11. বিনোদন
  12. বিভাগীয় খবর
  13. রাজনীতি
  14. রাশিফল
  15. লাইফস্টাইল

মদনে বিনা নোটিশে ঘরবাড়ি ভাংচুরের প্রতিবাদে মানববন্ধন

অনলাইন ডেস্কঃ
সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২১ ৮:২৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

নেত্রকোনার মদনে বিনা নোটিশে ভুমিহীনদের বসতবাড়ি ভাংচুর করে উচ্ছেদের প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে ভুক্তভোগী পরিবারগুলো। শুক্রবার (২৪ সেপ্টেম্বর) দুপুরে মদন পৌর শহরের ব্রীজ সংলগ্ন প্রধান সড়কে ভুক্তভোগীদের উদ্যেগে এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

এসময় বক্তব্য রাখেন, স্থানীয় পৌর কাউন্সিল মোঃ মুকুল মিয়া, ভুক্তভোগীদের পক্ষে স্বপন মিয়া, আনোয়ারাসহ আরো অনেকে।

এসময় তারা বলেন, প্রায় ৪০ বছর যাবত তারা এখানে বসবাস করে আসছ। গত মঙ্গলবার আদালতের নির্দেশে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ আইন শৃঙ্খলার লোকজন এসে সরকারি জায়গা থেকে ৭টি ভুমিহীন পরিবারগুলোকে বিনা নোটিশে ঘরবাড়ি ভাংচুর করে উচ্ছেদ করে দেয়।

পরে তাদের ১০ থেকে ১২ টি ঘর ভেঙে দেয়া হয়েছে। কেটে ফেলা হয়েছে আম. জাম, লিচুসহ বিভিন্ন জাতের ফলজ গাছ ও গাছের চারা। ঘর ও আসবাবপত্র ভাঙচুর ও তছনছ করা হয়েছে। এতে সর্বশান্ত হয়ে পড়ে ঔই পরিবারগুলো। বর্তমানে তারা ছোট ছোট শিশু ও যুবতি মেয়েদের নিয়ে খোলা আকাশের নিচে রয়েছে। দ্রুত তাদের ঘরবাড়ি ফিরিয়ে দিয়ে পুনর্বাসনের দাবি জানান।

মদন বাজারের ব্যবসায়ী ফজলুল হক আকন্দ বলেন, ‘আমরা ছোট বেলা থেকে দেখে আসছি কয়েকটি গরীব পরিবার ঘর তৈরী করে এখানে বসবাস করছে। হঠাৎ করে সূরুজ খান, আবদুল করিম খান লোকজন নিয়ে ওই সমস্ত গরীব অসহায় মানুষগুলোর ঘর ভেঙে ছেলেছে। তাদেরকে একটু সময় পর্যন্ত দেয়নি ঘর ও আসবাবপত্র সরিয়ে নেওয়ার।’

মদন পৌরসভার কাউন্সিলর মো. মুকুল মিয়া বলেন, ‘কোন ধরনের নোটিশ ছাড়াই ভূমিহীন ওই সমস্ত সাতটি পরিবারের থাকার ঘর ভেঙে দেওয়া হয়েছে। বিষয়টি আমার কাছে খুবই অমানবিক মনে হয়েছে। শুনেছি একাধারে ৩০ বছর কোন ভূমিতে থাকলে বসবাসকারীদের নিজের হয়ে যায়। পূনর্বাসনের ব্যবস্থা না করেই উচ্ছেদ করাটা ঠিক হয়নি। আমি এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি।’

এদিকে জায়গার মালিক দাবীদার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসকের গাড়ি চালক সুরুজ খানের ভাই আব্দুল করিম খান জানান, ‘বন্দোবস্ত মামলায় আমাদর পক্ষে রায় হয়েছে। তাই প্রশাসনের লোকজন আমাদের জায়গা আমাদের বুঝিয়ে দিয়েছেন।’

এ বিষয়ে মদন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বুলবুল আহমেদ বলেন, ‘আদালতের নির্দেশে লোকজন গিয়ে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয়ছে। এখানে আমি শুধু আইন শৃংখলার বিষয়টি দেখেছি। এর বাইরে আমার কোন দায়িত্ব নেই।’

আরো পড়ুনঃ কলমাকান্দায় মায়ের বিদেশ যাওয়া আটকাতে মেয়ের আত্মহত্যা

x