ঢাকাসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে মোহনগঞ্জে ঈদে বাড়ি ফেরা যাত্রীবাহী গাড়ি আটকে চাঁদাবাজির ঘটনায় পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

এদিন প্রতিবাদ চাঁদাবাজদের হামলায় দুই যাত্রীও জখম হয়। পরে তাদের উদ্ধার করা হয় হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসাপ্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয় । তবে মামলার পরপরই গা ঢাকা দিয়েছে অভিযুক্তরা।

বুধবার মোহনগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) তাজুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এরআগে মঙ্গলবার সকালে উপজেলার সামাইকোনা এলাকায় কংশ নদের সেতুর ঢালে এ চাঁদাবাজির ঘটনা ঘটে। ওই ব্রিজ নেত্রকোনার মোহনগঞ্জ ও সুনামগঞ্জের ধর্মপাশাকে সংযুক্ত করেছে।

মামলার আসামি হলেন, মোহনগঞ্জ উপজেলার কলুংকা গ্রামের মো. সাইকুল ইসলাম (২২), একই গ্রামের মামিন মিয়া (২১), মো. বিজয় মিয়া (২০), মো. রফিক মিয়া (২২) ও মো. রাসেল মিয়া (২২)। এছাড়া মামলায় আরও ৪-৫ জনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়।

এদিকে ভুক্তভোগী গাড়ি চালক তোফায়েল আহম্মেদ পরাণের বাড়ি বারহাট্টা উপজেলার ভাবনীকোনা গ্রামে।

মামলার অভিযোগ, পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ঈদ উপলক্ষে পরাণ তার ব্যক্তিগত পিকআপে করে যাত্রী পরিবহন করছিলেন। মঙ্গলবার সকালে ঢাকা থেকে যাত্রী নিয়ে ধর্মপাশার উদ্দেশ্য রওনা হন। পথে নেত্রকোনার মোহনগঞ্জের সামাইকোনা সেতুর ওপর পৌছলে ৮-১২ যুবক গাড়ি থামায়। তারা ১০০ টাকা চাঁদা দাবি করেন।চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানালে চালকের আসনে থাকা পরাণকে গাড়ি থেকে টেনেহিঁচড়ে বের করে মারধর করে তারা। এ সময় যাত্রীরা প্রতিবাদ করলে তাদের ওপর হামলা চালায় ওই চাঁদাবাজরা। এতে দুই যাত্রী জখম হন।

আহতরা হলেন, উপজেলার বারঘর নোয়াগাঁও গ্রামের মো. পবিন মিয়া (২৫) ও সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ উপজেলার লক্ষ্মীপুর গ্রামের মো. রিয়াজিবুর রহমান (৩৩)। পরে তাদের উদ্ধার করে মোহনগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। এদিকে ৯৯৯ এ কল করে পুলিশের সহায়তা চাইলে ধর্মপাশা থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে ছুটে যায়। এসময় হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। পরে এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে পিকআপ চালক পরাণ বাদী হয়ে থানায় অভিযোগ করলে আজ বুধবার ১০ এপ্রিল বিভিন্ন ধারায় মামলা দায়ের করেছেন।

ভুক্তভোগী পিকআপ চালক তোফায়েল আহম্মেদ পরাণ জানান, ঢাকা থেকে যাত্রী নিয়ে মঙ্গলবার সকালে মোহনগঞ্জের সামাই সেতুর ওপর উঠতেই ১০-১২ জন যুবক গাড়ি থামায়। তারা আগে থেকেই এই সড়কে ঢাকা থেকে যাত্রী নিয়ে আসা গাড়ি আটকে চাঁদা তুলছিল। তারা ১০০ টাকা চাঁদা চাইলে আমি টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানাই। কিসের টাকা জানতে চাইলে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে অশালীন ভাষায় গালাগাল শুরু করে। এক পর্যায়ে চালকের আসান থেকে টেনে বের করে আমাকে মারধর করে। এতে যাত্রীরা প্রতিবাদ করলে তাদের ওপর হামলা চালায় চাঁদাবাজরা। হামলায় ছুরির আঘাতে দুই যাত্রীর মাথা কেট জখম হয়। এ ঘটনায় থানায় অভিযোগ করা হয়েছে।

মোহনগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) তাজুল ইসলাম বলেন, ঘটনার পরপরই চাঁদাবাজদের বাড়িতে গিয়ে আসামি আটকের চেষ্টা করেছি । অভিযুক্তরা গা ঢাকা দিয়েছে। তবে আসামিদেরকে গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

আরো পড়ুন : দুদিনব্যাপী লোকসংগীত অনুষ্ঠিত দুদিনব্যাপী লোকসংগীত অনুষ্ঠিত 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *